সংবাদ
VR

বাংলাদেশ আরএএস সিস্টেম

ডিসেম্বর 12, 2023

      

      

ইনডোর অ্যাকুয়াকালচার প্রযুক্তি হল নিয়ন্ত্রিত পরিবেশগত অবস্থার অধীনে কৃত্রিম পদ্ধতি ব্যবহার করে জলজ উদ্ভিদ এবং প্রাণী চাষের একটি উপায়। এটি পরিবেশ দূষণ এবং মাছের রোগের বিস্তারের ঝুঁকি হ্রাস করার সাথে সাথে চাষের দক্ষতা এবং উত্পাদন বৃদ্ধি করতে পারে।


বাংলাদেশে, জলজ চাষ একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক উৎস কিন্তু জলবায়ু পরিবর্তন, পরিবেশ দূষণ এবং মৎস্য সম্পদ হ্রাসের মতো অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। ইন্ডোর অ্যাকুয়াকালচার প্রযুক্তি এই সমস্যাগুলির সমাধান করতে পারে এবং বাংলাদেশে জলজ চাষের উত্পাদনশীলতা এবং গুণমান উন্নত করতে পারে।


বর্তমানে, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ জলজ চাষ প্রধানত মাছ, চিংড়ি এবং কাঁকড়া চাষের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। এদের মধ্যে চাষ করা মাছের প্রধান প্রজাতি হল তেলাপিয়া, নীল তেলাপিয়া, গ্রাস কার্প ইত্যাদি; চাষকৃত চিংড়ির প্রধান প্রজাতি হল সাদা চিংড়ি, কালো বাঘ চিংড়ি ইত্যাদি; এবং কাঁকড়ার প্রধান প্রজাতির লোমশ কাঁকড়া এবং নদী কাঁকড়া।

ইনডোর অ্যাকুয়াকালচার প্রযুক্তির প্রয়োগ বাংলাদেশে ধীরে ধীরে প্রচার করা হয়েছে, যা জলবায়ু এবং ঋতুগত সীমাবদ্ধতা নির্বিশেষে যে কোনও জায়গায় চাষ করা যেতে পারে এবং জলজ চাষের দক্ষতা এবং উত্পাদন উন্নত করতে জলজ পরিবেশকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। এছাড়াও, ইনডোর অ্যাকুয়াকালচার দূষণের ঝুঁকি এবং জলজ পালনের সময় মাছের রোগের বিস্তার কমাতে পারে এবং জলজ প্রাণীর পরিবেশগত পরিবেশ রক্ষা করতে পারে।


উপসংহারে বলা যায়, বাংলাদেশের জলজ শিল্পে ইনডোর অ্যাকুয়াকালচার প্রযুক্তির প্রয়োগ আশাব্যঞ্জক এবং বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে এবং জলজ চাষের মান উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।


      

      


মৌলিক তথ্য
  • বছর প্রতিষ্ঠিত
    --
  • ব্যবসার ধরণ
    --
  • দেশ / অঞ্চল
    --
  • প্রধান শিল্প
    --
  • প্রধান পণ্য
    --
  • এন্টারপ্রাইজ আইনি ব্যক্তি
    --
  • মোট কর্মচারী
    --
  • বার্ষিক আউটপুট মান
    --
  • রপ্তানি বাজার
    --
  • সহযোগিতা গ্রাহকদের
    --

আপনার তদন্ত পাঠান

একটি আলাদা ভাষা চয়ন করুন
English
Tiếng Việt
ภาษาไทย
বাংলা
العربية
Español
français
Português
Pilipino
简体中文
Bahasa Melayu
বর্তমান ভাষা:বাংলা